অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম 

আমাদের মাঝে অনেকে আছি সারা মূলত এখন পর্যন্ত অনলাইনের মধ্যে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে পারিনি। তবে আশা করা যায় আজকের পোস্ট দেখার মাধ্যমে আপনি পুরো বিষয়টি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন। এবং অর্জিত জ্ঞান অনুসারে অনায়াসে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করে ফেলতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে আসা যাক জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম সম্পর্কে।

 

বন্ধুরা যদি আপনি জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে সবার পূর্বে জন্ম নিবন্ধনটি অনলাইনে রাখতে হবে। অর্থাৎ আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধনটি সবার পূর্বে অনলাইন করে নিবেন। তা না হলে সংশোধন করা যাবে না। যদি আপনার অনলাইনে থেকে থাকে তাহলে আপনাকে এই লিংকে ক্লিক করে আবেদন করতে হবে জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য- 

 

https://bdris.gov.bd/br/correction। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনার নিজের জন্ম নিবন্ধন এর নম্বরটি দিয়ে তা খুঁজে বের করুন। এরপরে আপনার যে সব অংশে ভুল রয়েছে সেগুলোর সমাধান করে তারপরে আবার নতুন করে সাবমিট করুন। এরপরে আপনার সকল কাগজপত্র সমূহ প্রিন্ট করে ফেলুন আবেদন করেছেন যেগুলো।

এরপরে সেই প্রিন্ট নিয়ে আপনাকে মূলত আপনার নিকটস্থ পরিষদ/পৌরসভা/কাউন্সিলর অফিসে জমা দিতে হবে। এরপরে সেই কর্তৃপক্ষ যখন আপনার জন্ম নিবন্ধনটি পুনরায় পর্যবেক্ষণ করবে তখন সকল সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তবে এর জন্য কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করলে সহজে আপনি আবেদন করতে পারবেন। এবং আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন হয়ে যাবে।

ধাপ ১: সবার প্রথমে আপনাকে বাংলাদেশী জন্ম নিবন্ধন ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে। ওয়েবসাইটের লিংক https://bdris.gov.bd/। এরপরে এখানে প্রবেশ করার পরে একদম উপরে যে মেনু রয়েছে সেখানে একটি ক্লিক করতে হবে। তারপর সেখান থেকে জন্ম নিবন্ধন এর উপর চাপ দিলে আবার একটি মেনু আসবে।

ঠিক একই মেনু থেকে আপনাকে আবারও চাপ দিতে হবে নিজের দেওয়া যে ছবি রয়েছে ঠিক সেটির মতন। অর্থাৎ জন্ম তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন লেখাটিতে। আর এখানে ক্লিক করার পরে নিচে ধাপ অনুসরণ করতে থাকুন।

 

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

ধাপ ২: যদি আপনি আপনার নিজের বাবা-মার জন্য এই আবেদনটি করতে চান সে ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম রয়েছে। আর সেইসব নিয়ম অনুসরণ করতে হবে যা আপনাকে বলে দেওয়া হবে ওই পেজের মধ্যে। আর যদি আপনি নিজের হয় কিংবা আমার হয় যারই হোক না কেন এরপরে নিয়মটি অনুসরণ করুন। আপনি ওখানে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর নম্বর এবং জন্মতারিখ বাছাই করে নিন। ঠিক ছবিতে যেরকম দেখানো হচ্ছে সেভাবে।

এরপর আপনার সামনে আপনার নিজস্ব জন্ম নিবন্ধন টি দেখা যাবে। সেখান থেকে আপনার নিজের জন্ম নিবন্ধন টির পাশে বাছাই করা নামক একটি বাটন থাকবে সেখানে চাপ দিবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

ধাপ ৩: উপরোক্ত দুটি ধাপ অনুসরণের পরে আপনাকে মূলত আপনার নিজের আরো কিছু ইনফরমেশন দিতে হবে। অর্থাৎ নিজের গ্রাম পৌরসভা জেলা উপজেলা এসব কিছু বাছাই করে নিতে হবে। এবং এসব কিছু আমাদের ছবিতে যেভাবে দেখানো হয়েছে সেভাবে দিবেন। কেননা কোনোটি ভুল হলে হয়তোবা আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন নাও হতে পারে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

ধাপ ৪: এই ধাপে আপনাকে কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। কেননা এইভাবে অনেকে আছেন যারা মূলত ভুল করে ফেলে। কিংবা এই যে ধাপে আসার পরে না বুঝতে পেরে তারা মূলত ব্যাক করে ফেলে। তাই চলুন নিচের ছবিতে দেখানোর মতো নিয়ম অনুসারে আপনাদের একই নিয়মে করতে হবে জন্ম নিবন্ধন ফরম পূরণ। সবার প্রথমে নিচের থেকে আপনার যে বিষয়টি দিতে বলা হয়েছে সেটি উপর চাপ দিতে হবে। উপরে আরো একটি অপশন পাবেন যার ছবিতে দেখানো হয়েছে। সেখানে ক্লিক করলে আপনার যেসব information গুলো দরকার রয়েছে তার মধ্যে যে কোন একটি সিলেক্ট করে দিবেন। এরপরে ঠিক একইভাবে বাকি যে সকল তথ্য পূরণ করতে বলেছে তা করে নিবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

ধাপ ৫: নিচের ছবিতে দেখুন আমি ৩টি তথ্য এখানে সংশোধনের জন্য আবেদন করছি। আবেদনের কারণ হিসেবে ”ভুলভাবে লিপিবদ্ধ হয়েছে” এটি সিলেক্ট করুন। জন্ম তারিখ সংশোধনের ক্ষেত্রে ক্যালেন্ডার থেকে আপনার জন্মসাল, মাস ও তারিখ সিলেক্ট করতে হবে। এরপরে আপনি নিচের দিকে গেলে আরো বেশ কিছু তথ্য খুঁজে পাবেন। আর সেই সকল তথ্য পুরুন শেষে আপনার প্রায় কাজ শেষ হয়ে যাবে। এর পরবর্তীতে একটি ধাপ অনুসরণের মাধ্যমে আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের ধাপ গুলো পূরণ হবে।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম

 

ধাপ ছয়: এরপরে যে জন্ম নিবন্ধন টি ফরম পূরণ করেছে তার নিজের মোবাইল নম্বর দিতে হবে। আর তারপরে মূলত তাকে ফর্মটির সাবমিট এর উপর ক্লিক করতে হবে। তাহলে কাজ শেষ হয়ে যাবে। এরপরে সাবমিট করা হলে একটি পিডিএফ ফাইল দেওয়া হবে যে পিডিএফ ফাইলটি প্রিন্ট করে নিতে হবে। আর সেই প্রেম করা ফাইলটি আপনাদের নিয়ে যেতে হবে কাঙ্খিত পৌরসভা পরিষদ কাউন্সিলর অফিসে।

 

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

 

জন্ম নিবন্ধনের জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ কাগজ আপনাদের সবার প্রথমে সংগ্রহ করতে হবে। তবে অবশ্যই বিভিন্ন কারণ ভেদে ভিন্ন ভিন্ন কাগজ লাগতে পারে। অর্থাৎ নিম্নলিখিত কাগজ গুলোর মধ্যে যে কোন একটি কাগজ লাগতে পারে।

 

  • নাম, জন্ম তারিখ ও পিতামাতার নাম জাতীয় পরিচয় পত্র
  • শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ
  • পাসপোর্টের কপি
  • পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন বা জাতীয় পরিচয়পত্র
  • টিকা কার্ড/ হাসপাতালের সনদস্থায়ী ঠিকানা পরিবর্তনকাউন্সিলর বা চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র
  • স্থায়ী ঠিকানার হালনাগাদ কর পরিশোধের রসিদবর্তমান ঠিকানা পরিবর্তনবিদ্যুৎ/ ইউটিলিটি বিলের কপি

 

জন্ম নিবন্ধন নাম সংশোধন করার নিয়ম

 

জন্ম দিববন্ধনে যদি আপনার নিজের নাম ভুল থাকে তাহলে সংশোধন করতে পারবেন। উপরে যে নিয়মটি দেওয়া হয়েছে ঠিক একই নিয়ম মেনে শুধুমাত্র আপনাকে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আবেদন করার পরে ১৫ দিনের মতন সময় লাগবে। এবং আপনার ১৫ দিন পরে মূলত আবেদনটি গ্রহণ করা হবে। অবশেষে আপনি মূলত আপনার নিজের নামটি পরিবর্তন করতে পারবেন।

 

জন্ম নিবন্ধনে পিতা/মাতার নাম সংশোধন

 

যদি পিতা অথবা মাকার আপনি জন্ম নিবন্ধনের সংশোধন পেতে চান তাহলে অবশ্যই নিয়ম রয়েছে। যদি আপনার পিতা/মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকে এবং আপনার জন্ম তারিখ 01/01/2001 এর পূর্বে হয়, তবে আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় আপনার পিতা/মাতার নাম সংশোধন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার পিতা/মাতা মৃত হলেও তাদের মৃত্যুর কোন প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে না।

কিন্তু, যদি আপনার পিতা/মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকে এবং আপনার পিতা/মাতা মৃত হয় এবং আপনার জন্ম তারিখ 01/01/2001 এর পরে হয়, তবে আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় আপনার পিতা/মাতার নাম সংশোধন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার পিতা/মাতার মৃত্যুর প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে।

 

পাসপোর্ট দিয়ে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করা।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২

মূলত আপনি চাইলে পাসপোর্ট ব্যবহার করে নিজের জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে ঠিক একই নিয়ম অনুসরণ করতে হবে শুধু অনলাইনে আবেদনের ক্ষেত্রে। এর জন্য যখন আপনি আপনার আইডি নম্বরটি দিবেন সেই জায়গায় আপনি চাইলে পাসপোর্ট নাম্বারটি চালু করে দিতে পারেন। আর পাসপোর্ট নম্বর চালু করে দিয়ে সেখানে আপনার পাসপোর্ট এর নম্বর এবং ইনফরমেশন গুলো পূরণ করলেই চলবে। এভাবে করে ঠিক একই নিয়মে আসলে পাসপোর্ট দিয়ে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করা যাবেংখ

 

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে কত টাকা লাগে?

 

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ সরকারি প্রদান করতে হয়। বাংলাদেশী ভাই বোনদের জন্য এ ফি ধরা হয়েছে ৫০ টাকা। রয়েছেন তাদের জন্য এই কি করা হয়েছে ১ ইউএস ডলার। বর্তমান বাংলাদেশের মূল্য অনুযায়ী ১০০ টাকা। আর এই ফি প্রদান করা যাবে ব্যাংকিং বা অনলাইন মাধ্যম গুলোতে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *